Breaking News
Home / অন্যান্য / অনলাইন লাইভ ক্লাসের অনুমতি ও আর্থিক অনুদান চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে অ্যাসেব’র মানবিক আবেদন

অনলাইন লাইভ ক্লাসের অনুমতি ও আর্থিক অনুদান চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে অ্যাসেব’র মানবিক আবেদন

বেলায়েত হোসেনঃ

বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসের প্রদুর্ভাবের কারনে সারা পৃথিবীতে মানব দেহের উপরে যেই প্রভাব পড়েছে সেই প্রভাবে শিক্ষা ব্যবস্থাকেও বিপর্যস্ত করেছে। আর তারি ধারাবাহীকতায় সরকার শিক্ষা ব্যবস্থাকে গতিশীল রাখতে চালু করেছে অনলাইন শিক্ষা। দেশের শিক্ষা ব্যবস্থা গতিশীল রাখার জন্য এই মুহুর্তে এর বিকল্প নেই। তারি ধারাবাহীকতা অক্ষুন্ন রাখতে চায় এসোসিয়েশন অব শ্যাডো এডুকেশন বাংলাদেশ (অ্যাসেব)।

সে লক্ষেই আজ (৩রা মে) সোমবার এসোসিয়েশন অব শ্যাডো এডুকেশন বাংলাদেশ (অ্যাসেব) মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বরাবরে একটি মানবিক আবেদন জানিয়েছেন। নিম্নে আবেদনটি হুবহু তুলে ধরা হল।

জনাব,

সবিনয় নিবেদন এই যে, গত এক দশকে আপনার সুযোগ্য নেতৃত্বে বাংলাদেশ এখন বিশ্বের কাছে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে পরিগণিত হচ্ছে। দারিদ্র নির্মূল করে মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি, অবকাঠামো ও যোগাযোগ ব্যবস্থা, চিকিৎসা ও কৃষিতে অভাবনীয় সাফল্য অর্জনে আপনার দিক নির্দেশনায় ত্বরান্বিত হচ্ছে অগ্রযাত্ৰা।

সম্প্রতি বিশ্ব বিস্তৃত করোনা ভাইরাস বাংলাদেশে হানা দিলেও আপনার সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে আমরা তা নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়েছি। দেশবাসি আশা করছে আপনার সুনিপুন পরিচালনায় মাথা উঁচু করে আবারো ঘুরে দাঁড়াবে বাংলাদেশ।

মাননীয় নেত্রী, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলা গড়ার মানসে আপনি শিক্ষা খাতকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে আসছেন। ভয়াল করোনার কারণে শিক্ষা ব্যবস্থাও আজ সমস্যার মুখোমুখি। সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ। বন্ধ রয়েছে শিক্ষা সেবা দানকারী ছায়াশিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমূহ। এমতাবস্থায় শিক্ষা ব্যাবস্থায় গতি সঞ্চার ও শিক্ষার্থীদের পড়া লেখার ক্ষতি পূরণে ছায়া শিক্ষা সেবা দানকারী প্রতিষ্ঠান সমূহের সংগঠন “এসোসিয়েশন অব শ্যাডো এডুকেশন বাংলাদেশ” হতে পারে বিশেষ সহায়ক শক্তি। অবিলম্বে সংসদ টেলিভিশনের পাশাপাশি আমাদের সংগঠনটিকে অনলাইন লাইভ ক্লাসের অনুমতি দিলে শিক্ষার্থীদের পাঠদানের পাশাপাশি প্রশ্নোত্তর পর্বও চলমান রাখা সম্ভব। যা অনেকাংশে ক্লাস রুমে বসে ক্লাস করার মতই হবে।

মাননীয় নেত্রী, আপনি এখন দেশের ষোলো কোটি মানুষের একমাত্র ভরসার স্থল হিসেবে স্থান করে নিয়েছেন। অন্যান্য সকল ক্ষেত্রের ন্যায় শিক্ষাক্ষেত্রে যে ঈর্ষণীয় সাফল্য এসেছে তাতে এদেশের প্রায় লক্ষাধিক ছায়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও জড়িত। ক্লাসের বাইরে শিক্ষার্থীদের সহযোগিতা করে যাচ্ছে এই ছায়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো। বছরের একটা দীর্ঘ সময় স্কুল, কলেজ বন্ধ থাকে এবং সময় স্বল্পতার কারণে সিলেবাস শেষ করা সম্ভব হয় না। এক্ষেত্রে ভূমিকা রাখছে উক্ত ছায়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো। যেখানে কর্মরত বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের দরিদ্র ও মেধাবী কয়েক লক্ষ শিক্ষার্থী। যারা দরিদ্র পিতা-মাতাকে চাপ না দিয়ে নির্বিঘ্নে চালিয়ে যেতে পারছে নিজেদের পড়াশুনার খরচ। আমরা বিশ্বাস করি আপনি এ সমস্ত বিষয়ে অবগত আছেন।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আপনি আরও অবগত আছেন যে , ছায়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো ভাড়া বাসায় ও শতভাগ নিজস্ব অর্থায়নে পরিচালিত। এই করোনা নামক মহামারীর কারণে দেশের প্রায় লক্ষাধিক ছায়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের পথে। যেখানে কর্মরত প্রায় অর্ধ কোটি মানুষ। যদি এইভাবে এই প্রতিষ্ঠানগুলো দীর্ঘদিন বন্ধ রাখতে হয় তাহলে আপনার সহযোগিতা ছাড়া পুনরায় চালু করা অসম্ভব হয়ে পড়বে। তাই অন্যান্য ক্ষেত্রের ন্যায় ব্যক্তিমালিকানাধীন এই ছায়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোও আপনার সুদৃষ্টি ও আর্থিক সহযোগিতা প্রত্যাশা করে।

অতএব, প্রার্থনা, দেশের শিক্ষা ব্যবস্থার করোনাকালীন ক্ষতি মোকাবেলায় যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ পূর্বক “এসোসিয়েশন অব শ্যাডো এডুকেশন বাংলাদেশ” কে অনলাইন লাইভ ক্লাসের অনুমতি ও প্রয়োজনীয় আর্থিক অনুদানের ব্যবস্থা করতে আপনার সদয় হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

বিনীত নিবেদক

বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ইমাদুল হক (ই হক স্যার)

আহ্বায়ক

এসোসিয়েশন অব শ্যাডো এডুকেশন বাংলাদেশ (অ্যাসেব)।

 

About dhakacrimenews

Check Also

জনপ্রতিনিধিদের উদ্দেশ্যে সাংবাদিক বেলায়েত হোসেনের সংক্ষিপ্ত খোলা চিঠি 

আসসালামু আলাইকুম বিগত ডিসেম্বরের শেষ দিকে চীনের উহান থেকে ছড়িয়ে বৈশ্বিক মহামারিতে পরিণত করোনাভাইরাসে বিশ্বজুড়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *