Home / জাতীয় / কর্ণফুলীতে সৌরবিদ্যুতের সড়ক বাতিতে আলোকিত মেঠোপথ

কর্ণফুলীতে সৌরবিদ্যুতের সড়ক বাতিতে আলোকিত মেঠোপথ

জে.জাহেদ, চট্টগ্রাম ব্যুরো:

চট্টগ্রাম জেলার কর্ণফুলীর পাঁচ ইউনিয়নের গ্রামাঞ্চলের বেশিরভাগ এলাকায় এখন পৌঁছে গেছে শতভাগ বিদ্যুত। এর পাশাপাশি যোগ হয়েছে সৌর বিদ্যুতায়িত সোলার সিস্টেম বাতি।

ফলে গ্রামের মেঠোপথও এখন আলোকিত হচ্ছে। গ্রামের মোড় কিংবা ছোট বাজার ছাড়াও মসজিদ, মাদ্রাসা, কমিউনিটি ক্লিনিক ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান সহ গুরুত্বপ‚র্ণ এলাকায় পৌঁছে যাচ্ছে সৌর বিদ্যুতের আলো।

কর্ণফুলীতে একটা সময় ছিল যখন রাতে গ্রামের মেঠোপথ মানেই ছিল অন্ধকারাচ্ছন্ন। পথ চলতে অন্ধকারে গা শিউরে উঠত। পাড়া-মহল্লা ছিল আধারে আছন্ন ভুতুড়ে পরিবেশ। সন্ধ্যা লাগলেই রাস্তায় দেখা মিলত না কোন মানুষের। তবে গ্রামের সে চিত্র এখন পাল্টাতে শুরু করেছে।

গ্রামের মেঠোপথ, গোরস্থান, মসজিদ, মন্দির, এখন রাতে সৌর বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত হয়ে উঠেছে। পৌর এলাকা কিংবা সিটি এলাকা নয়, গ্রামের অলি গলিতেও এখন দ্যুতি ছড়াচ্ছে সরকারের এ প্রকল্পের সৌরবিদ্যুত ও তিন ধরনের সড়ক বাতি।

ত্রান পুনর্বাসন ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতরের গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণ কর্মস‚চীর আওতায় সৌর বিদ্যুতে জ্বলছে চারদিকে গ্রামীণ সড়ক বাতি। উপজেলার তথ্য মতে, ২০১৬ সাল থেকে পটিয়া উপজেলার অধীনে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে সোলার স্থাপন ও মেঠোপথে স্ট্রিট লাইট বসানোর কাজ শুরু করেছিল।

কর্ণফুলী উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের মেঠোপথে দুই শতাধিক স্ট্রিট লাইট বসানো হয়েছে। এছাড়াও ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় স্ট্রিট লাইটের পাশাপাশি স্কুল, কলেজ, মসজিদ, মন্দিরসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে সোলার হুম সিস্টেম সার্ভিস বসানো হয়েছে দেড় শতাধিক। বর্তমানে উপজেলায় স্ট্রিট লাইট ও সোলার হোম সার্ভিস সিস্টেমের মাধ্যমেও আলোর ব্যবস্থা রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর ঘরে ঘরে বিদ্যুত পৌঁছে দেয়ার অঙ্গীকারে গ্রামীণ সড়কেও সৌর বিদ্যুত আলো দিচ্ছে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতরের গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণ কর্মস‚চীর আওতায় সৌর বিদ্যুতের এ সড়ক বাতি বসেছে।

এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, অনেক জায়গায় এখনো মেঠোপথে স্ট্রিট লাইট স্থাপনের কাজ চলছে।

এ বিষয়ে খোয়াজনগর এলাকার বাসিন্দা নাছির উদ্দীন নাহিদ বলেন, তার এলাকায় ১১টি সৌর প্যানেলের মাধ্যমে সড়ক বাতি বসানো হয়েছে। যা আলোকিত করছে এলাকা। রাতের আঁধারে সৌর বিদ্যুতের আলোয় নিরাপদে মানুষ চলাচল করছে। রাস্তাগুলো আলোকিত হওয়ায় এখানে এখন রাতে অপরাধ প্রবণতা অনেকাংশেই কমে এসেছে। এখন রাত নামলেই আলোয় আলোকিত হচ্ছে অবহেলিত গ্রামীণ রাস্তাগুলো।

উপজেলার চরপাথরঘাটা ইউনিয়নের ইউপি সদস্য ফরিদ জুয়েল বলেন, ‘তার এলাকার বাদামতল, নয়াপাড়া, সৈন্যরেটেক পুলের মনি গোষ্ঠির বাড়ির সামনে, মোহছেন আলি পাড়া ও মাদ্রাসা পাড়ার প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলের মেঠোপথে আরো কিছু স্ট্রিট লাইট স্থাপন করা জরুরী।

এ বিষয়ে তিনি সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ ও উপজেলা চেয়ারম্যানের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।

স্থানীয় গ্রামের লোকেরা জানান, গত বছর থেকে স্থানীয় ইউনিয়নের মাধ্যমে সৌর প্যানেল বসিয়ে গ্রামের রাস্তায় স্ট্রিট লাইট দেয়া হয়েছে। এতে গ্রামের চিত্রটা পাল্টে গেছে। এখন রাতে গ্রাম আলোময় হয়ে থাকছে। গ্রামের মানুষ রাতে নিরাপদে চলাচল করতে পারছে।

স্ট্রিট লাইট স্থাপনের অনুমোদিত ডিলার ইনফ্রাস্ট্রাকচার ডেভেলপমেন্ট কোম্পানী লিমিটেড ( আইডিসিওল) এর এক কর্মকর্তা জানান, সোলার হোম সার্ভিস সিস্টেম বলতে গ্রামের মসজিদ, মন্দির, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভিতরে বসানো লাইটকে বুঝানো হয়েছে। আর স্ট্রিট লাইট হলো, গ্রামের মেঠোপথে বিভিন্ন গুরুত্বপ‚র্ণ স্থানে মানুষের চলাচল যেখানে বেশি। যেমন, রাস্তার মোড়ে মোড়ে বাঁকা রাস্তায় বসানো বাতি ইত্যাদি।

সৌর বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত হচ্ছে এখন কর্ণফুলীর অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এই সুবিধা থাকায় লোডশেডিং হলেও প্রয়োজনীয় কাজ করতে পারছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সোলার প্যানেলও বসানো হয়েছে।

বিদ্যুতের ওপর চাপ কমাতে গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণের আওতায় এই প্রকল্পটি হাতে নিয়েছে সরকার। আগে লোডশেডিংয়ের কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোতে প্রয়োজনীয় কাজ বন্ধ থাকলেও সৌর বিদ্যুতের কল্যাণে কম্পিউটার, ফ্যান ও লাইট জ্বলায় সেই দুরবস্থার মুক্তি মিলেছে। এতে উপকৃত হচ্ছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থী উভয়েই।

এ প্রসঙ্গে কর্ণফুলী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ফারুক চৌধুরী বলেন, ‘গ্রামের মানুষের রাতের চলাচল নিরাপদ ও নির্বিঘœ করতে সরকার এ পদক্ষেপ হাতে নিয়েছে। মন্ত্রী মহোদয়ের বরাদ্দ থেকে ১৪২টি সড়ক বাতি ছাড়াও মসজিদ, মাদ্রাসা, কমিউনিটি ক্লিনিক ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে আরো ৬০টির মতো স্ট্রিট লাইট ও শতাধিক সোলার প্যানেল বসানো হয়েছে।’

জানা যায়, কর্ণফুলীতে এসব সড়ক বাতি স্থাপনের অনুমোদিত ডিলার ইনফ্রাস্ট্রাকচার ডেভেলপমেন্ট কোম্পানী লিমিটেড ( আইডিসিওল)। প্রতিটি সোলার প্যানেল পণ্যও আইডিসিওল দ্বারা অনুমোদিত। যা বাস্তবায়নে উপজেলায় কাজ করছে উদ্দীপন নামক এনজিও সংস্থা।

About dhaka crimenews

Check Also

বিষপানে ইমামের আত্মহত্যা চৌগাছায়

যশোরের চৌগাছায় ইউসুফ আলী (৪০) নামের এক ইমাম আগাছা নাশক (ঘাষ পোড়া) বিষ পান করে ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *