Home / সম্পাদকীয় / কে এই হতভাগী বৃদ্ধা?

কে এই হতভাগী বৃদ্ধা?

ষ্টাফ রিপোটার পলাশ:
৭৫ বছর উর্ধবয়সী হতভাগী অসুস্থ্য এক প্রবীণ মহিলাকে তার আত্নীয়-স্বজনেরা ফেলে পালিয়েছে। শিবালয়ের আরিচা ফেরি-ট্রাক টার্মিনাল অভ্যন্তরে গত কয়েকদিন আগে ফেলে যাওয়া মানুষটি তার পরিচয় বলতে পারে না। কোথায় তার বাড়ি, কে তার স্বজন, কেই বা ফেলে গেছে এ বৃদ্ধাকে? এ নিয়ে স্থানীয় জনমনে নানা প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে। থানা পুলিশ বিষয়টি অবহিত হয়ে বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে বৃহস্পতিবার রাতে শিবালয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করলেও শুক্রবার এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তার কোন স্বজনের খোঁজ মিলেনী।

জানা গেছে, প্রায় সপ্তাহ যাবৎ আগে আরিচা ট্রাক টার্মিনালের গণ-শৌচাগারের পাশে পরিত্যাক্ত একটি ঘড়ের বাড়ান্দায় অসুস্থ্য অবস্থায় প্রবীণ এ মহিলাকে কে বা কারা ফেলে যায়। প্রসাব-পায়খানায় জড়ানো বৃদ্ধা এ মানুষটিকে সুস্থ্য করার চেষ্ঠা চালায় টার্মিনাল শৌচাগার পরিস্কার কর্মী আব্দুর রহমান ও জবেদা নামের স্থানীয় এক মহিলা। ধীরে-ধীরে সে আরোও অসুস্থ্য হয়ে পড়ে। বৃদ্ধার নাকি ছেলে-মেয়ে সবই আছে। ফেলে যাওয়ার প্রথম দু’দিনে সে কিছু-কিছু কথা বললেও পরিচয় যানায়নি। বলেছে- ‘এ সবই নাকি তার ভাগ্য’। গত এক সপ্তাহে বৃদ্ধার কোন পরিচয় না মেলায় স্থানীয়রা বিষয়টি শিবালয় থানা পুলিশকে অবহীত করে। পুলিশ অসুস্থ্য বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

এ ব্যাপারে শিবালয় থানা কমিউনিটিপুলিশিং ফোরামের সিপিও এসআই আব্দুল জলিল জানান, উদ্ধার হওয়ায় অসুস্থ্য বৃদ্ধা কোন কথা বলছেন না। তবে, ইশারায় কথা বলার চেষ্টা করছে। তাকে দ্রুত সুস্থ্যতার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। প্রাথমিক তথ্যমতে আত্নীয়-স্বজন খুঁজে বের করার কাজ চলছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ আরশ্বাদ উল্লাহ জানান, হাসপাতালের ১৫ নং বেডে ভর্তি কৃত বৃদ্ধার শারিরীক অবস্থা ধিরে-ধিরে উন্নত লাভ করছে। তার নাম রংবাহার বলে সে জানিয়েছে। তাকে সুস্থ্য করে তোলার জন্য চেষ্টা চলছে।

এদিকে, স্থানীয়ভাবে দাবী উঠেছে ফেলে যাওয়া হতভাগী এ বৃদ্ধার আত্নীয়-স্বজনকে খুঁজে বের করে আইনের মাধ্যমে যথাযথ শাস্তি প্রদান করতে হবে।

About dhaka crimenews

Check Also

ফেসবুকের ফাঁদে বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্ম

ঢাকা ক্রাইম নিউজ : ক্রমবিবর্তনশীল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির নব নব আবিষ্কারের সহায়তায় এগিয়ে যায় মানব ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *