Home / জেলার সংবাদ / ময়মনসিংহে তিন ভাইবোন অ্যাসিডদগ্ধ

ময়মনসিংহে তিন ভাইবোন অ্যাসিডদগ্ধ

 খবর অনুযায়ী, হালুয়াঘাট উপজেলার কালাপাগলা গ্রামের মরিয়ম আক্তারের সঙ্গে একই উপজেলার বাসিন্দা সোহেলের বিয়ে হয় তিন বছর আগে। বছরখানেক আগে মরিয়ম তাঁর স্বামীকে তালাক দেন।

এরপর থেকে সোহেল নানাভাবে মরিয়ম ও তাঁর পরিবারকে হয়রানি করতেন। গত মঙ্গলবার রাতে মরিয়মের দূরসম্পর্কের এক ভাই জানালা দিয়ে তাঁকে লক্ষ্য করে অ্যাসিড ছোড়েন।

এতে মরিয়মের সঙ্গে তাঁর আরও দুই ভাইবোন দগ্ধ হন। পরিবারের অভিযোগ, মরিয়মের সাবেক স্বামী সোহেলের নির্দেশেই এই অ্যাসিড হামলা চালানো হয়েছে।

একসঙ্গে তিন ভাইবোনের অ্যাসিডদগ্ধ হওয়া যে ওই পরিবারের জন্য কতখানি বিপর্যয়কর ডেকে এনেছে, তা উপলব্ধি করা কঠিন নয়। অ্যাসিড হামলার আঘাত মারাত্মক।

মারাত্মক দাহ্য পদার্থ অ্যাসিড গায়ে লাগলে মানুষের ত্বকের টিস্যু গলে যায়। এতে ক্ষতিগ্রস্ত স্থানের হাড় বেরিয়ে আসে। কারও চোখে অ্যাসিড পড়লে স্থায়ীভাবে তাঁকে অন্ধত্ব বরণ করতে হয়।

দেশে অ্যাসিড-সন্ত্রাসের ঘটনা আগের চেয়ে কিছুটা কমলেও পরিস্থিতি এখনো উদ্বেগজনক। পারিবারিক কলহ, জমিজমা নিয়ে বিরোধ, প্রেম বা বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যানসহ নানা কারণে মানুষ অ্যাসিড-সন্ত্রাসের শিকার হচ্ছে।

অ্যাসিড নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০০২ অনুযায়ী অ্যাসিড-সন্ত্রাস জামিন-অযোগ্য অপরাধ এবং এর সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই অপরাধীরা আইনের ফাঁকফোকর দিয়ে বেরিয়ে আসে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক পরিসংখ্যান অনুযায়ী গত ১৪ বছরে অ্যাসিড-সন্ত্রাসের মামলায় ১৪ জন আসামির মৃত্যুদণ্ড হয়েছে, কিন্তু এখনো কোনো মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয়নি।

এ ছাড়া যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হয়েছে ১১৯ জনের। অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় ১ হাজার ৮৩৫ জন আসামি খালাস পেয়েছেন। ১৪ বছরে একজন আসামির মৃত্যুদণ্ড কার্যকর না হওয়া দুর্ভাগ্যজনক।

মরিয়ম ও তাঁর দুই ভাইবোনের ওপর অ্যাসিড নিক্ষেপকারীসহ সব অ্যাসিড হামলাকারী ও তাঁর নির্দেশদাতার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হোক। এ ব্যাপারে আইন নিজস্ব গতিতে চলবে, এটাই প্রত্যাশিত।

অন্যদিকে অ্যাসিডের সহজলভ্যতা রোধে যে আইন আছে, তা কঠোরভাবে প্রয়োগ জরুরি বলে মনে করি।

About Dhakacrimenews24

Check Also

গোপালগঞ্জে বাস-ট্রাক সংঘর্ষে নিহত ৬

ঢাকা ক্রাইম নিউজঃগোপালগঞ্জে নৈশ কোচ ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে নারীসহ ৬ জন নিহত হয়েছেন। এ ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *