Home / সম্পাদকীয় / ঈদের ছুটি শেষে কর্মচাঞ্চল্য ফেরেনি বেনাপোল বন্দরে

ঈদের ছুটি শেষে কর্মচাঞ্চল্য ফেরেনি বেনাপোল বন্দরে

ঢাকা ক্রাইম নিঊজঃ পবিত্র ঈদুল আজহার টানা তিন দিনের ছুটি শেষে অফিস খুললেও বেনাপোল বন্দরে এখনো ফিরে আসেনি কর্মচাঞ্চল্য। বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে আমদানি-রপ্তানি বানিজ্য চালু হলেও আগামী সপ্তাহের আগে বন্দরের কর্মচাঞ্চল্য ফিরে আসবে না বলে ধারণা করছেন বন্দর ব্যবহারকারী সংগঠনগুলো।

কাস্টম ও বন্দর সূত্র মতে, ঈদুল আজহা উপলক্ষে বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে ৩১ আগস্ট থেকে ৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য বন্ধ ছিল।

ছুটি শেষে গতকাল সোমবার অফিস খুললেও লোকজনের উপস্থিতি ছিল খুবই কম। অনেক কর্মকর্তাকেই অফিসে উপস্থিত হতে দেখা যায়নি। আমদানি-রপ্তানি চললেও রপ্তানিমুখী কয়েকটি পণ্য ছাড়া বন্দর থেকে পণ্য খালাসের সংখ্যা ছিল খুবই কম। আগামী সপ্তায় বন্দরের কর্মচাঞ্চল্য পুরোদমে ফিরে আসবে বলে সংশিষ্টদের ধারণা।

বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্টস এসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান সজন জানান, ঈদের ছুটি শেষে বন্দর ও কাস্টম হাউস খোলা থাকলেও কর্মকর্তা-কর্মচারীরা শুভেচ্ছা বিনিময়ে করেই সময় কাটিয়েছেন দফতরে।

তিনি আরো জানান, কাস্টমস ও বন্দরসহ অন্যান্য দপ্তরের কাজকর্ম চলছে ধীর গতিতে। টানা ছুটির কারণে দুই দেশের বন্দর এলাকায় পণ্যবোঝাই শত শত ট্রাক আটকা পড়েছে।
আমদানিকারকরা সময় মতো বন্দর থেকে পণ্য খালাশ না নেওয়ায় আমদানি-রপ্তানি বানিজ্য স্বাভাবিক হতে আরো কয়েকদিন সময় লাগবে বলে জানান
তিনি।

ইন্ডিয়া-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্সের  বন্দর সাব কমিটির চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান জানান, দেশের অধিকাংশ আমদানিকারকরা ঈদের আমেজ কাটিয়ে উঠে এখনো তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলতে পারেননি।

অনেক আমদানিকারক পরিবার-পরিজনের সঙ্গে ঈদ উদযাপন করছেন গ্রামের বাড়িতে। দোকানের লোকজন ও লেবাররাও ছুটিতে গেছেন। ঈদের আমেজ কাটার পর তারা আমদানিকৃত পণ্য চালান খালাস করে থাকেন।

ঈদের তিন দিন আগে ও পরে হাই ওয়েতে  ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যান চলাচল বন্ধ রাখার সরকারি সিদ্ধান্তের কারণে বুধবারের আগে পণ্যবোঝাই ট্রাক হাইওয়েতে চলাচল করতে পারবে না। সে জন্য বন্দর থেকে পণ্য খালাসের সম্ভাবনাও কম।

বেনাপোল কাস্টম এর ডেপুটি কমিশনার মারম্নফুল ইসলাম জানান, ঈদের ছুটি শেষে বেনাপোল বন্দর দিয়ে পুরোদমে আমদানি-রপ্তানি বানিজ্য শুরু হয়েছে। আজ সোমবার বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারত থেকে ৩৬৬ ট্রাক মালামাল আমদানি হযেছে ও রপ্তানি হয়েছে ৫৫ ট্রাক মালামাল।

বেনাপোল স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের উপ-পরিচালক রেজাউল করিম জানান, ‘ঈদের ছুটি ও ঈদের ৩ দিন আগে ও পরে পণ্যবাহী ট্রাক হাইওয়েতে চলাচলে বিধি-নিষেধ থাকায় আমদানিকৃত পণ্যের চাপে বন্দরে ভয়াবহ পণ্য জটের আশঙ্কা রয়েছে। যারা পণ্য খালাস করতে আসবে তাদের পণ্য দ্রুত খালাসের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বেনাপোল কাস্টম হাউসের কমিশনার মো: শওকাত হোসেন জানান, ঈদের ছুটি শেষে বন্দর থেকে দ্রুত পণ্য খালাস ও শুল্কায়নের জন্য শুল্ক ভবনের সকল কর্মকর্তাকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। বন্দর ও কাস্টমস রাত দিন ২৪ ঘণ্টা খোলা রেখে মালামাল দ্রুত খালাশের নির্দেশণাও দেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, বেনাপোল বন্দর দিয়ে দেশের সিংহভাগ গার্মেন্টস ইন্ডাস্ট্রিজ ও বিভিন্ন শিল্প কল-কারখানার কাচামাল  আমদানি হয়ে থাকে। প্রতিদিন বেনাপোল বন্দর দিয়ে ৬০০ ট্রাক মালামাল আমদানি হয়ে থাকে। রপ্তানি হয় ২০০ ট্রাক।

About Dhakacrimenews24

Check Also

কোলের সন্তানকে ফেলেও প্রেমিককে বিয়ে করতে চান এই গৃহবধূ

ঢাকা ক্রাইম নিউজঃ চার বছরের শিশু সন্তানকে ফেলে প্রেমিককে বিয়ে করতে চান শাহানাজ বেগম নামের ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *